পৌর নির্বাচন: গাইবান্ধায় পুলিশের ওপর হামলা ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, গাইবান্ধা
পৌর নির্বাচন: গাইবান্ধায় পুলিশের ওপর হামলা ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগ

পৌর নির্বাচন: গাইবান্ধায় পুলিশের ওপর হামলা ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগ

  • Font increase
  • Font Decrease

গাইবান্ধা পৌরসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষে একটি কেন্দ্রের ব্যালট ও সরঞ্জাম নিয়ে ফেরার আগে পুলিশের ওপর হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় পুলিশের একটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ম্যাজিস্ট্রেট ও র‌্যাবের আরও তিনটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।

শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় গাইবান্ধা পৌরসভা নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণ শেষে এ ঘটনা ঘটে। পৌরসভার পূর্ব কোমরনই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে ব্যালট ও সরঞ্জাম নিয়ে ফিরছিল পুলিশ।

থানা ও জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী (রেল ইঞ্জিন প্রতীক) আনওয়ার-উল-সরওয়ারের কর্মী-সমর্থকেরা এ হামলা চালায়। তবে আনওয়ার-উল-সরওয়ারের কর্মী-সমর্থকেরা বলেন, ভোট গণনা না করেই ব্যালট ও সরঞ্জাম নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তাই বিক্ষুব্ধ জনতা এ ঘটনা ঘটায়।

গাইবান্ধার পুলিশ সুপার (এসপি) তৌহিদুল ইসলাম ও গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানান, ভোট গণনা না করে এবং ফলাফল ঘোষণা না করেই সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে পুলিশ ও নির্বাচনী অফিসের লোকজন ব্যালট ও মালামাল নিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় মেয়র পদপ্রার্থী আনওয়ার-উল-সরওয়ারের সমর্থকেরা পুলিশের ওপর হামলা করে একটি গাড়িতে আগুন দেন। তারা পুলিশ ও র‌্যাবের আরও তিনটি গাড়ি ভাঙচুর করেন। এ সময় পুলিশও কয়েক দফা ফাঁকা গুলি ছোড়ে ও লাঠিপেটা করে। এ সময় কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন।

এদিকে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আনওয়ার-উল-সরওয়ার দাবি করেছেন, তার কর্মী–সমর্থকেরা এ ধরনের কোনও হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। কে বা কারা এ হামলা করেছে তা তিনি জানেন না।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আবদুল মোত্তালিব জানান, ওই কেন্দ্রের ভোট গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণার প্রস্তুতির সময় লোকজন নির্বাচনি কর্মকর্তা ও পুলিশের ওপর হামলা চালায়। তবে ব্যালট বা কোনও সরঞ্জাম এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি।