বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা, আটক ১



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নোয়াখালী
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

  • Font increase
  • Font Decrease

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে কাদিরপুর ইউনিয়নে বসত ঘরে ঢুকে গৃহবধূকে (২১) ধর্ষণের চেষ্টায় পুলিশ একজনকে আটক করেছে।

শনিবার (২১ নভেম্বর) দুপুর ৩টায় আটক আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। শুক্রবার রাতে তাকে উপজেলার ১৬ নং কাদিরপুর ইউনিয়ন থেকে আটক করেছে পুলিশ। এর আগে, শুক্রবার বিকেলে ভুক্তভোগী নিজে বাদী হয়ে এ ঘটনায় দুইজনকে আসামি করে বেগমগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

আটক সেলিম (৪৫) উপজেলার কাদিরপুর ইউনিয়নের সাদু ড্রাইভারের নতুন বাড়ির সাদু ড্রাইভারের ছেলে। মামলার অপর আসামি হলো- কাদিরপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাহাব উদ্দিন (৪০)। সে একই এলাকার মফিজ সর্দারের ছেলে।

বেগমগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ভুক্তভোগী নিজে বাদী হয়ে মামলা করেছে। মামলার আলোকে প্রধান আসামিকে আটক করেছে পুলিশ এবং অপর আসামিকে আটকের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা যায়, আটক আসামি সেলিম নির্যাতিত গৃহবধূর বসত ঘর সংলগ্ন প্রজেক্টে মাছ চাষ করে। গত (৩০ সেপ্টেম্বর) মাছের প্রজেক্ট পরিষ্কার পরিচন্ন করছিল। ওই দিন দুপুরে অভিযুক্ত সেলিম গৃহবধূর বসত ঘরের সামনে গিয়ে এক গ্লাস পানি চায়। পানি দিয়ে গৃহবধূ চলে যাওয়ার সময় সেলিম গৃহবধূকে ঘরে একা পেয়ে তার হাতে থাকা ছেনি দিয়ে হত্যার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পরবর্তীতে স্থানীয় ইউপি সদস্য সাহাব উদ্দিন এ ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালায়। ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে মীমাংসার জন্য বৈঠকে অভিযুক্ত আসামি দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চায়। কিন্তু নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামী বৈঠকের সিন্ধান্ত না মেনে চলে আসে। পরে ইউপি সদস্য সাহাব উদ্দিন এ বিষয় নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে ভুক্তভোগী পরিবারকে মারধর করে বাড়ি ঘর আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়ে এলাকা ছাড়া কারার হুমকি দেয়।

ওসি মুহাম্মদ কামরুজ্জামান জানান, পলাতক আসামিকে গ্রেফতারে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে। আটক আসামিকে গ্রেফতার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।