কাপড়ের দোকানের সেলসম্যান থেকে স্বর্ণ ব্যবসায়ী-ভূমিদস্যু মনির



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
কাপড়ের দোকানের সেলসম্যান থেকে স্বর্ণ ব্যবসায়ী-ভূমিদস্যু মনির

কাপড়ের দোকানের সেলসম্যান থেকে স্বর্ণ ব্যবসায়ী-ভূমিদস্যু মনির

  • Font increase
  • Font Decrease

মনির হোসেন নব্বই দশকে রাজধানীর গাউছিয়া মার্কেটে একটি কাপড়ের দোকানে সেলসম্যান হিসেবে কাজ করতেন। সেখান থেকে অপরাধ জগতে পা রেখে হয়ে উঠেন স্বর্ণ ব্যবসায়ী, ভূমিদস্যু। এক পর্যায়ে স্বর্ণ চোরাকারবারির সঙ্গে জড়িয়ে ‘গোল্ডেন মনির’ নামের খেতাব পান। এখন তার মোট সম্পত্তির পরিমাণ এক হাজার ৫০ কোটি টাকার বেশি।

শনিবার (২১ নভেম্বর) মেরুল বাড্ডা ডিআইটি প্রজেক্টের ১১ নম্বর সড়কে গোল্ডেন মনিরের বাসায় অভিযান শেষে এক ব্রিফিং-এ র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ এসব তথ্য জানান।

তার উত্থান সম্পর্কে বলতে গিয়ে র‌্যাবের পরিচালক বলেন, গ্রেফতারকৃত গোল্ডেন মনির নব্বই দশকে গাউছিয়ায় একটি কাপড়ের দোকানে সেলসম্যান হিসেবে কাজ করতেন। এরপর ক্রোকারিজের ব্যবসা, লাগেজ ব্যবসা-অর্থাৎ ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে মালামাল দেশে আনতেন। একপর্যায়ে স্বর্ণ চোরাকারবারের সঙ্গে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন। বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ তিনি বিদেশ থেকে নিয়ে এসেছেন। তার স্বর্ণ চোরাকারবারির রুট ছিল ঢাকা-সিঙ্গাপুর-ভারত। এই সকল দেশ থেকে ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ বাংলাদেশে আমদানি করতেন। যার ফলশ্রুতিতে তার নাম হয় গোল্ডেন মনির।

র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার গোল্ডেন মনির

স্বর্ণ চোরাকারবারির জন্য তার বিরুদ্ধে ২০০৭ সালে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা হয় বলে জানান তিনি।

স্বর্ণ চোরাচালানের পাশাপাশি একপর্যায়ে গোল্ডেন মনির ভূমিদস্যুতে পরিণত হন। এ প্রসঙ্গে লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন, গোল্ডেন মনিরের আরেকটি পরিচয় আছে তিনি ভূমিদস্যু। রাজউকের কতিপয় কর্মকর্তার যোগসাজশে বিপুল পরিমাণ অর্থ সম্পদের মালিক হয়েছেন। ঢাকার শহরের ডিআইটি প্রোজেক্ট, বাড্ডা, নিকুঞ্জ, উত্তরা এবং কেরানিগঞ্জে তার ২০০’ র বেশি প্লট আছে বলে আমরা জানত পেরেছি। ইতিমধ্যে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ৩০টি প্লট রয়েছে বলে স্বীকার করেছেন। রাজউকের কাগজপত্র জাল-জালিয়াতি করে এবং স্বর্ণ চোরাকারবারি করে তার মোট সম্পদের পরিমাণ এক হাজার ৫০ কোটি টাকার ঊর্ধ্বে।

মনিরের কোনো রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা আছে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে আশিক বিল্লাহ বলেন, একটি রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তাঁর সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে তাঁরা জানতে পেরেছেন। সেই দলটির অর্থ জোগানদাতা হিসেবেও তিনি কাজ করেন। তবে দলের নাম উল্লেখ করেননি আশিক বিল্লাহ।

মনির হোসেন ওরফে গোল্ডেন মনিরকে গ্রেফতারের পর তার হেফাজত থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, কয়েক রাউন্ড গুলি, বিদেশি মদ এবং প্রায় ৯ লাখ টাকার বৈদেশিক মুদ্রা পাওয়া যায়। তার বাসা থেকে আট কেজি স্বর্ণ, নগদ এক কোটি ৯ লাখ টাকা, ৫টি বিলাসবহুল গাড়ি জব্দ করা হয়েছে।