চাল-তেলে ঊর্ধ্বমুখী, সবজিতে স্বস্তি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম,ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কিছুদিন যাবত চাল-তেলের দাম লাগামহীন। তবে কয়েক মাস ধরেই সব ধরনের সবজির দাম কম। অধিকাংশ সবজি ৩০ থেকে ৪০ টাকার মধ্যে মিলছে। সবজিতে স্বস্তি থাকলেও মাংস ও মাছের বাজার চড়া।

মূলত শীতের মৌসুম শুরুর পর থেকেই সবজির দাম যথেষ্ট কম। শীত শেষ হয়েছে বেশি কিছুদিন। তারপরও বাজারে অধিক পরিমাণে রয়েছে শীতকাল সবজি। অধিকাংশ সবজির কেজি ২০ টাকা থেকে ৪০ টাকার মধ্যে।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রায়ের বাজার, ঝিগাতলা কাঁচাবাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, বেগুনের কজি ২৫ টাকা থেকে ৩০ টাকা, গাজরের কেজি ২৫ থেকে ৩০ টাকা, শিমের কেজি ৩০ টাকা থেকে ৪০ টাকা, টমেটোর কেজি ২০ টাকা, কাঁচা মরিচের কেজি ৪০ টাকা থেকে ৫০, পেঁপের কেজি ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা, প্রতিটি লাউ ৪০ টাকা থেকে ৫০ টাকা, ফুলকপি ২০ টাকা থেকে ২৫ টাকা, বাঁধা কপি ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা, শালগম ২০ টাকা, করোলা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, সজনেডাঁটা ২৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। লেবুর হালি ৩০ টাকা থেকে ৪০ টাকা।

প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা থেকে ৩৫ টাকা। হলান্ডের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা কেজি। আলুর কেজি ১৫ টাকা। ইন্ডিয়ান মসুর ডাল ৮০ টাকা কেজি, দেশি মসুর ডাল ১১০ টাকা কেজি। রসুন ১২০ টাকা থেকে ১৩০ টাকা কেজি, আদা ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। রাজধানীর বড় বাজারগুলোর থেকে পাড়া-মহল্লার দোকানে দাম কিছুটা বেশি লক্ষ্য করা যায়।

বাজরে তিন ধরেনর মিনিকেট চাল আছে। এসব চাল ৬২-৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আটাশ চালের কেজি ৫২ থেকে ৫৪ টাকা, নাজিরশাইল চাল ৬৫-৬৮ টাকা, পাইজাম চাল ৪৮ থেকে ৫০ টাকা কেজি, গুটি স্বর্ণ ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে প্রতি লিটার বোতলজাত তেল ১৩৫ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। যদিও গায়ের মূল্য ১৩৫ টাকার বেশি। খোলা তেল বিক্রি হচ্ছে ১২৫ টাকা কেজি। ভোজ্যতেলের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে দা। নির্ধারণ করে দিয়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় সংক্রান্ত দর নির্ধারণ কমিটি। কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী খোলা সয়াবিন প্রতিলিটার খুচরা ১১৫ টাকা, বোতলজাত ১৩৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

রায়েরবাজারের মুদি-দোকানি আরমান বার্তা২৪.কমকে বলেন, তেলের দাম কয়েক দফা বৃদ্ধির পর দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। বোতলজাত তেলের গায়ের মূল্য বেশি থাকলেও সরকারের বেধে দেয়া দামে বিক্রি হচ্ছে। সরকার প্রতিলিটার খোঁলা তেলের ১১৫ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে, আমরা ১২৫ টাকা কেজি বিক্রি করছি। লিটার হিসাবে সরকারের দামই পরে।

বয়লার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা, কক মুরগি ২০০ টাকা কেজি, গরুর মাংস ৫৮০ টাকা, খাসির মাংস ৯০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। পাকিস্তানি মুরগীর জোড়া বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা। ডিমের ডজন ৮২ থেকে ৮৫ টাকা।

মাছের বাজারও বেশ চড়া। বড় সাইজের কতলা ও  রুই ৩৫০ টাকা, মাঝামাঝি সাইজের ২৭০ ও ছোট সাইজের কেজি ২২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।